রুই মাছের ঝোল রেসিপি । Rui Macher Bengali Recipe

নমস্কার বন্ধুরা, আজকে এসেছি শীতের সবজি দিয়ে জ্যান্ত রুই মাছের ঝোল রেসিপি গরম গরম এই রুই মাছের ঝোল সিমগুলি দিয়ে আজকে আমি রান্না করব ।

সবার প্রথমে নিয়ে নিয়েছি জ্যান্ত রুই মাছ মাছের লেজের দিকের অংশ গুলো কিছুটা রিং পিস করে কেটে নেওয়া হয়েছে। আর ওপরের দিকটায় পেটি গাদা এরকমভাবে কিন্তু কেটে নেওয়া হয়েছে।

ভাল করে ধুয়ে নিয়েছি মাছগুলোকে। এবারে নুন হলুদ মাখিয়ে নেব দিয়ে দেবো হাফিজ পরিমাণে নুন লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে দিচ্ছি স্পুন।

আর দিয়ে দেবো হাবিসপুর হলুদ গুঁড়ো আমি কিন্তু এখানে পাঁচশ গ্রাম মাছ নিয়েছি। তারপর নুন হলুদ আর লঙ্কার গুঁড়ো ভালো করে মাছের গায়ে মাখিয়ে নিয়ে এটাকে রেখে দেবো মিনিট পাঁচেক।

এবারে করায় খুব ভালো মতো গরম করে নিয়ে তার মধ্যে দিয়ে দেবো। সর্ষের তেল তেল খুব ভালো মতো গরম হয়ে গেলে এরমধ্যে বড়ি ভেজে নেব।

প্রায় বুঝি আমি এর মধ্যে ভেজে নেব হাই ফ্লেমে কিন্তু বইগুলোকে ভাজতে হবে লাল লাল করে বড়িগুলো ভেজে নিয়েছি। এবার এগুলোকে তেল থেকে ছেঁকে তুলে নেব।

এই রান্নাটা কিন্তু সর্ষের তেলে খুব ভাল লাগবে। আমি এবারে কড়াইতে তিন টেবিল স্পুন মতো সরষের তেল রেখেছি। এর মধ্যে মাছ ভেজে নেব প্রথমে তিন পিস মাছ ভেজে নিচ্ছি।

মাছগুলোকে হাই ফ্লেমে উল্টে পাল্টে ভাল করে ভেজে নেব। মাছগুলি ভাজা হয়ে গেছে। এবার এগুলোকে তেল থেকে ছেঁকে তুলে নেব।

এই ভাবে বাকি তিন পিস মাছ ভেজে নিতে হবে। মাছ ভেজে নেওয়ার পর মাছের তেলে ভেজে নেব আলু মাঝারি সাইজের আলু লম্বালম্বি করে কেটে নিয়েছে এই রকম আর মাছের বাটিতে নুন হলুদ মাখিয়ে নিয়েছি সেটাকে ভেজে নিতে হবে আলুগুলোকে ও মিডিয়াম টু লো ফ্লেমে নাড়াচাড়া করে ভালো করে ভেজে নেব।

তারপর ভাজা হয়ে গেলে আলুগুলিকে তুলে নেব। আলুগুলোও ভেজে তুলে নেওয়ার পর এই তেলে ভেজে নেব শিম এই সময়ে কিন্তু ফিল্মটাকে একদম লো তে রাখতে হবে। সেগুলো কিন্তু বেশি ভাজার প্রয়োজন নেই।

জাস্ট মিনিট দুয়েক সেগুলোকে হালকা করে ভেজে নিয়ে এগুলোকে তুলে নিতে হবে। সেগুলো ভেজে নেওয়ার পর এবারে ওই তেলে ফোড়ন দিয়ে দেবো শুকনো লঙ্কা আর দিয়ে দেবো হাফ টিস্পুন গোটা জিরে ফোড়ন তাঁকে ফ্রাই করব 10 সেকেন্ড তারপর এর মধ্যে দিয়ে দেবো কুচানো পেঁয়াজ মাঝারি সাইজের পেঁয়াজ কুচিয়ে নিয়ে সেটা দিয়ে দিলাম।

পেঁয়াজ তাঁকে ফ্রাই করব। লো ফ্লেমে 5 মিনিট। পেঁয়াজ থাকে 5 মিনিট ফ্রাই করে নিলাম এবার এর মধ্যে দিয়ে দেবো মাঝারি সাইজের টমেটো কুচি আর দিয়ে দেবো এক টি স্পুন আদা বাটা এবার সব কিছুকে নাড়তে নাড়তে আবারও 3 মিনিট মতন কষিয়ে নেব।

টমেটো দেওয়ার পরে 34 মিনিট কষিয়ে নিলাম এবার। এর মধ্যে গুঁড়ো মশলা অ্যাড করবো দিয়ে দিচ্ছি ধনের গুঁড়ো দু টি স্পুন।

জিরেরগুঁড়ো এক টিস্পুন লঙ্কার গুঁড়ো হাফ টিস্পুন, হলুদ গুঁড়ো, হাফ টিস্পুন, কাশ্মীরের চিলি পাউডার দিবো কালের জন্য হাফ টিস্পুন আর দেবো নুন এক টিস্পুন এবারে অল্প জল এক করে মশলাটাকে ভাল করে কষিয়ে নিতে হবে।

প্রায় 45 মিনিট সময় ধরে মশলাকে কষিয়ে নেব যতক্ষণ না মশলা থেকে তেল ছাড়তে শুরু করছে। মশলা কষানো প্রায় কমপ্লিট৷

এবার এফএম তাকে হাই করে অনবরত নাড়তে নাড়তে আরও 1 মিনিট মশলাটা কষিয়ে নেব দেখতে পাচ্ছেন মশলা থেকে তেল ছাড়তে শুরু করে দিয়েছে ব্যাস ভালো করে মসলা কষিয়ে নিলাম এবার এর মধ্যে দিয়ে দেবো ভেজে রাখা আলু আর শিম, আলু আর শিম দেওয়ার পরে আরও 1 মিনিট নাড়াচাড়া করে নেব মশলার সঙ্গে ভালো করে কষিয়ে নেব।

ব্যস কষানো হয়ে গেলে এর মধ্যে অ্যাড করে দেবো জল প্রায় এক লিটার মতো জল। আমি ওখানে দিয়ে দিলাম। কারণ এই রেসিপিটা কিন্তু একটু ঝোল ঝোল হবে। অর্থাৎ পাতলা ঝোলের রেসিপি৷ তাই জন্য আমি পরিমাণ জল দিলাম।

এ বারে যে গ্রেভিটা ফুটতে শুরু করবে তখন আমি প্রেমটাকে একদম লো তে করে ঢাকা দিয়ে রান্না করব। 5 মিনিট তারপর ফিরে আসছি 5 মিনিট হয়ে গেছে। এবার ঢাকা খুলে এর মধ্যে ভেজে রাখা জ্যান্ত রুই মাছ গুলো দিয়ে দেবো।

আর দিয়ে দিচ্ছি গোটা চারেক কাঁচা লঙ্কা যেগুলোকে চিনে নিয়েছি তার পরে আবার ঢাকা দিয়ে 5 মিনিট রান্না করব লো ফ্লেমে।

আরও 5 মিনিট রান্না করে নিলাম৷ ঢাকা খুলে দেখে নেব যে আলু গুলো সিদ্ধ হয়েছে কি না। আলুগুলো কিন্তু সিদ্ধ হয়ে গেছে। এবার আমি ভেজে রাখা বড়ি গুলো অ্যাড করে দেব।

এবারে বই অ্যাড করার পর ফ্রেম থেকে হাই করে জাস্ট 1 মিনিট এটাকে ফুটিয়ে নেব। একটু নুন টা টেস্ট করে দেখে নেব আর একটু নুন লাগবে তাই আমি আর ও হাফ টি স্পুন নুন দিয়ে দেবো।

আর দিয়ে দিচ্ছি হাফ স্পুন পরিমাণে চিনি স্বাদ থাকে ব্যালান্স করার জন্য। এ বারে হাই ফ্লেমে এটাকে 1 মিনিট ফুটিয়ে নেব।

1 মিনিট ফোটানো হয়ে গেলে এক মুঠো ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে দেব। তার পরে তাকে ঢাকা দিয়ে রেখে দেবো। আরো 5 মিনিট স্ট্যান্ডবাই ব্যাস তৈরি হয়ে গেল। শিম বড়ি দিয়ে জ্যান্ত রুই মাছের ঝোল গরম গরম ধোঁয়া ওঠা ভাতের সঙ্গে। কিন্তু এই গরম গরম ঝোল খেতে খুব ভালো লাগে।

Leave a comment