নারকেল নাড়ু রেসিপি লক্ষী পুজো স্পেশাল | Narkel naru recipe in Bengali |

যখন ছোট ছিলাম এই গুড়ের নাড়ুর প্রতি আমার একটা আলাদাই ভালো লাগা ছিল. পুজোর প্রসাদের সাথে একটার জায়গায় দুটো পেলে সেদিন আমাকে আর পায় কে. মোট প্রায় সাত বছর আমেরিকায় থাকার সময় স্পেশালি পুজোর দিনগুলোতে খুব মিস করতাম. এরকম গুড়ের নারকেল নাড়ু. তাই ভাবলাম এর প্রপার রেসিপি ও প্রপার টেকনিকটা আপনাদের সাথে করি.

যাতে দেশে বা বিদেশে আপনারা যেখানেই থাকেন না কেন খুব সহজেই এটা বানিয়ে নিতে পারবেন. এবং যদি আপনারা আমার মতে নাড়ু লাভার হন তাহলে অবশ্যই কমেন্টের রেসিপিটা পড়ার পর আপনাদের ঠটটা শেয়ার করতে পারেন.

রেসিপি গুড় দিয়ে নারকেল নাড়ুর. তাহলে নারকেল নাড়ু বানানোর জন্য আমি সবার প্রথম এখানে দুটো নারকেল নিয়ে নিচ্ছি. যেগুলোকে আমি ভালো করে আগে থেকেই ছাড়িয়ে রেখেছি. এবার এই নারকেলগুলোকে করে নেওয়ার জন্য মাঝখান থেকে আমি এটাকে ফাটিয়ে নেবো.

আর এটা একদম প্রপারলি মাঝখান থেকে ফাটাবেন কিভাবে পরে নিই. প্রথমেই যেকোনো দাঁ মোটা ছুরি বা এরকম চপরের মাধ্যমে মাঝ বরাবর. এইভাবে হালকা হালকা করে মেরে নেবেন. আর তারপরে একবার জোরে মারলেই দেখবেন. এটা একদম মাঝ বরাবরই ভেঙে যাবে. আশা করি পরের বার নারকেল ফাটানোর সময় আপনারা এই টিক্সটা অবশ্যই ফলো করবেন.

এবার এই দুটো নারকেল কে আমি ভালো করে কুড়ে নেবো. আচ্ছা এখানে বলে রাখি এরকম অনেক টিপস এন্ড ট্রিকস আমি শেয়ার করেছি.

তাহলে আমার এখানে পুরো নারকেলটি খোঁড়া হয়ে গেল. আর এটা ওজনে হয়েছে প্রায় চারশো গ্রাম মতো. এবার এই পুরো নারকেলটাকে আমি একটা নস্টিকের কড়াইয়ের মধ্যে নিয়ে নিচ্ছি. যাতে নারকেলটা গুঁড়োর সাথে মাখিয়ে নেওয়ার পর আলাদা করে আর কোনো পাত্র চেঞ্জ করতে হয় না.

এবার নারকেলটাকে কোন কিছু না দি. ভালো করে একবার এইভাবে মেখে নিতে হবে. এক থেকে দেড় মিনিট এইভাবে মাখলেই দেখবেন. নারকোলটা বেশ অনেকটাই সফট হয়ে যাবে. কারণ এইভাবে একটু প্রেস করে মাখলেই দেখবেন. নারকেলের যে দুধটা আছে সেটাবেরোতে শুরু করবে.

আর নারকোলটা অনেক বেশি মোয়েস্ট হয়ে যাবে. আর মাখার সময় এটাও মনে রাখতে হবে. খুব বেশিক্ষণ কিন্তু এটা মাখার দরকার নেই. একটু এরকম টেকচার আসলেই দিয়ে দিতে হবে গুড়টা. আমি এখানে চারশো গ্রাম নারকেল কুড়োর জন্য নিয়ে নিয়েছি ছশো গ্রাম আখের গুঁড়ো. আপনারা চাইলে এই আখের গুড়টাকে আগে থেকে জ্বাল দিয়ে.

চিকেন কেউ রাখতে পারেন. বাট আমি এটাকে ডাইরেক্টলি নিয়ে নিয়েছি. আর এর যে ডালাগুলো আছে সেগুলোকে আমি ভেঙে নিচ্ছি. এবার এই নারকেলের সাথে আমি এটাকে ভালো করে মেখে নেবো. আমি এখানে গুড়ের পরিমাণটা একটু কম রেখেছি.

এবার যারা খুব বেশি মিষ্টি খেতে পছন্দ করেন সেক্ষেত্রে আরো পঞ্চাশ গ্রাম ক্রোড় এখানে অ্যাড করতে পারেন. বাট চারশো গ্রাম নারকেলের জন্য ছশো গ্রাম গুড় কিন্তু আপনাদের ব্যবহার করতেই হবে. না হলে নাড়ুতে কিন্তু ভালো করে পাকটা আসবে না. বাট আপনারা যদি মনে করেন এখানে হাফ চিনি আর হাফ গুড় দিয় মেশাবেন. তাহলে করে নিতে পারেন.

আর সেক্ষেত্রে আমি বলবো দু থেকে তিন চামচ গুণ দুধ ব্যবহার করার জন্য এতে এর বাইন্ডিং টা আরো ভালো আসে. আর এটাকে ভালো করে মাখা হয়ে গেলে ডাইরেক্টলি আমি নিয়ে নেবো. গ্যাসের মধ্যে. তারপর গ্যাসের ফ্লেমটা মিডিয়াম টু হাই করে ভালো করে মেশাতে থাকবো.

গুড়টা পুরোপুরি মেল্ডওয়ে নারকেল টাইপ পাক আসতে আপনাদের সময় লাগবে. মিনিমাম. সাত থেকে আট মিনিট. পারমিশানের সময় অতি অবশ্যই চেষ্টা করবেন. এইভাবে একটু প্রেস করে করে মিশিয়ে নেওয়ার আর এটা মেশানোর সময় গুড়ের ময়েশ্চার্টটা যখন পুরোটা যায়নি সেটা এইভাবে একটু গ্যাপ করলেই আপনারা বুঝতে পারবেন আর গুড়টা যত শুকোবে ততই এটা আস্তে আস্তে কম হতে থাকবে এতক্ষনে প্রায় চার থেকে পাঁচ মিনিট হয়ে গেছে.

আশা করি নিশ্চয়ই বুঝতে পাচ্ছেন. নারকেলের মধ্যেও কিন্তু আস্তে আস্তে পাখা চাষা শুরু করেছে. এবার যখনই দেখবেন আস্তে আস্তে নারকেলের মধ্যে এরকম পাক আসা শুরু করেছে. সেই সময় আপনাদের গ্যাসের ট্রেনটা একদম করে দিতে হবে. আর ততক্ষণ মেশাতে হবে. যতক্ষণ না নারকেলের পাকটা করা থেকে ছেড়ে আসছে আচ্ছা এবার এই স্টেজ আপনাদের দিয়ে দিতে হবে সামান্য একটু এলাচ কুঁড়ো আর সেটাকেও ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে. আশা করি এবার দেখে নিশ্চই বুঝতে পারছেন.

কড়ার গা থেকে একদম পারফেক্টলি ছেড়ে আসছে. আর নারকেলের পাকটাও খুব ভালোভাবে এসছে. এবার গ্যাসের ট্রেনটা বন্ধ করে করাটাকে আমাদের নাবিয়ে নিতে হবে. আর যাতে একটু ঠান্ডা হয়ে যায় সেই জন্য এইভাবে মেশাতে হবে আর নাড়ুগুলো বানানোর জন্য হাতে অবশ্যই নিয়ে নেবেন. সামান্য একটু ঘি.

এতে নাড়ুটা বানানোর সময় হাতেও লাগবে না. আর খুব সুন্দর একটা ফ্লেভার আর টেক্সচারও আসবে. এবার একে একে আমি সবকটাই নাড়ু বানিয়ে নেবো. এটা তো আমি গুড়ের নাড়ু আপনাদের শেখালাম আর যদি মনে হয় চিনির নাড়ুটাও আপনারা শিখবেন. সেটা আমাকে কিন্তু অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন. তাহলে সেটাও আমি আপনাদের খুব তাড়াতাড়ি করে দেখানোর চেষ্টা করবো আশা করি সম্পূর্ণ রেসিপি টা আপনাদের নিশ্চয়ই ভালো লেগেছে. আর ভালো লাগলে প্রতিবারের মতো আমাকে কিন্তু কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না.

ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন

Leave a comment