দই ইলিশ রেসিপি। Doi ilish recipe in bangla

ইলিশ মাছ কান্না খেতে ভালো লাগে। আর যদি ইলিশ মাছ বানানোর রেসিপি টা খুবই সহজ ও সিম্পল হয় তাহলে তার কোন কথাই নেই। আজকে আমাদের রেসিপি তৈরি ইলিশ।

Doi Ilish Ingredient:

৬০০ ইলিশ মাছ / 600g Hilsa Fish

১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো / 1 tsp Turmeric Powder

২ চা চামচ সরষের তেল / 2 tsp Mustard Oil

স্বাদমত নুন / Salt to Taste

২৫০ গ্রাম টকদই / 250g Curd

৩ চা চামচ হলুদ সরষে / 3 tsp Yellow Mustard

১ চা চামচ কালো সরষে / 1 tsp Black Mustard

১ চা চামচ পোস্ত দানা / 1 tsp Poppy seeds

জল / Water

৪ টি কাচা লঙ্কা / 4 ed Green Chilli

স্বাদমত নুন / Salt to Taste

৬-৭ টি কাচা লঙ্কা / 6-7 Green Chillies

২ চা চামচ সরষের তেল / 2 tsp Mustard Oil

তাহলে দই ইলিশ বানানোর জন্য এখানে সবার প্রথম নিয়েছি ৬ পিস ইলিশ মাছ আর ওজনে ছয়শ গ্রাম অবশ্যই ইলিশ মাছ গুলোকে আপনাদের একটু ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। আচ্ছা এবার মাছগুলোকে আমাদের ম্যারিনেট করে নিতে হবে। সামান্য একটু হলুদ আর নুন দিয়ে তার সাথে একটু এভাবে কাঁচা সর্ষের তেল দিতে ভুলবেন না। কারণ একটু তেল দিয়ে দিলে মাছটা ম্যারিনেট করতে আপনাদের বেশ সুবিধাই হবে। আর ফ্লেভারটা ও খুবই সুন্দর আসবে।

আর মাছটা ভাল করে ম্যারিনেট করা হয়ে গেলে আপনাদের রেখে দিতে হবে। মিনিমাম 15 মিনিট মতো। আচ্ছা এবারে দই ইলিশ বানানোর জন্য আমরা যে ব্যবহার করব তার থেকে আমাদের একটু জল থেকে বের করে নিতে হবে।

তার জন্য বাটিতে এ ভাবে ছাঁকনি দিয়ে উপরে এরকম সুতির কাপড় দিয়ে দেবেন। আর এই কাপড়ের মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে টক দই। আমি এখানে আরো একশ গ্রাম টক দই ব্যবহার করলাম। এইভাবে করার কারণ হলো টক দই থেকে আমাদের জল থেকে বের করে নিতে হবে।

পাবদা মাছের রেসিপি। pabda macher recipe in bangla

তা বলে, আমরা পুরো জলটা বের করব তা নয়৷ মোটামুটি একটু জলটা বের করে নিলেই হবে। কারণ দলের মধ্যে যদি খুব বেশি জল থাকে সেক্ষেত্রে ডেবিট একদমই ভাল আসবে না। আর সেটা খেতেও ভালো লাগবে না।

এবার 10-15 মিনিট এভাবে রেখে দিন। আচ্ছা এবারে দই ইলিশ করার জন্য আমাদের সর্ষের পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে আর তার জন্য পাত্রে নিচ্ছি তিন চা চামচ হলুদ সর্ষে বা সাদা সরষে আর এক চা চামচ কালো সর্ষে কালো সর্ষে পরিমানটা এখানে আপনাদের কমই রাখতে হবে।

আর টেস্ট একটু বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য লাগবে এক চা চামচ পোস্ত এবার একটু জল দিয়ে আপনাদের ভিজিয়ে রাখতে হবে। হাতে যদি সময় না থাকে তাহলে মিনিমাম 5 মিনিট সময় থাকলে মিনিমাম 15 মিনিট। এটাকে পিছিয়ে রাখবেন। আচ্ছা এবার 15 মিনিট পরে চার থেকে কাঁচা লঙ্কা দিয়ে তাকে ভালো করে পেস্ট করে নিচ্ছি আরে পাশে।তখন আমাদের দলটাও বেশ অনেকটাই ঝরে গেছে।

তাই দুই এবার আলাদা পাত্রে নিয়ে নিয়েছি। আশা করছি দেখে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন জলটা যে একদম বেরিয়ে গেছে তা নয় এক্সট্রা যেটা ছিল সেটা বেরিয়ে গেছে। আর একদম পারফেক্ট এক্স রে আছে এবার হুইস্পার চামচের মাধ্যমে তাঁকে ভাল করে ফেটিয়ে নেবেন কারণে ভাবে না ফেটিয়ে নিলেই গ্রেভিটা একদম স্মুথ হবে না।

আর ওভারঅল টেক্সচারটা একদমই ভাল আসবে না। এ যে আমরা সর্ষে পোস্তর পেস্টটা করেছিলাম সেটা এখানে দিয়ে দেব। আর দেওয়া হয়ে গেলে দই সাথে একবার ভালো করে মিশিয়ে নেব।

আর এ যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে স্বাদ মতো নুন আর মিষ্টির জন্য সামান্য একটু চিনি আশা করি টেস্টটা আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন। আচ্ছা এবার টিফিন কোণে সামান্য একটি মিক্সচার এখানে দিয়ে দেবেন। আর এইভাবে পুরো টিফিন কৌটোর মধ্যে ছড়িয়ে দেবেন যাতে ইলিশ মাছ গুলো আমরা এর উপরে দিতে পারি এবার একে একে আমি ইলিশ মাছগুলো এর মধ্যে সাজিয়ে নেব।

সাজানো হয়ে গেলে আমাদের চেয়ে বাকিটা ছিল সেটার ওপর দিয়ে দিচ্ছি এবার গার্নিসের জন্য আমি এখানে দিয়ে দিচ্ছি। কয়েকটা কাঁচা লঙ্কা তার সাথে অবশ্যই এখানে দিয়ে দেবেন।

দুই চা চামচ কাঁচা সর্ষের তেল এতে ফ্লেভারটা দ্বিগুণ হয়ে যায় আচ্ছা এবার এটাকে স্কিমে রাখার জন্য আমি কড়াইতে জল নিয়ে নিচ্ছি। যার উপরে আমি টিফিন বক্স টা কে রাখব। আর টিফিন বক্স রাখার জন্য যদি কোনও রকম হোল্ডার থাকে তাহলে ভালো না থাকলে যে কোনও বাটির ওপর বা শুধুই তাঁকে বসিয়ে দিতে পারেন।

শুধু খেয়াল রাখবেন, জলটা যাতে টিফিন বক্সের মধ্যে না ঢুকে যায়। এবার ঢাকা দিয়ে থাকে মিডিয়াম টু হাই ফ্লেমে মিনিমাম 30 মিনিট মতো করে নিতে হবে।

এবার ফাইনালে 30 মিনিট পরে আমি ঢাকনা খুলে আপনাদের দেখাচ্ছি। এই সময় টিফিন বক্স টা খুব গরম থাকবে। তাই খুব সাবধানে এটাকে আপনাদের খুলে নিতে হবে আর খোলে না। আবার পরে অতি অবশ্যই এইভাবে একবার এটাকে মিশিয়ে নেবেন যাতে গ্রেভিটা এক ভাল করে মিশে যায়।

তাহলে নিশ্চয়ই দেখতে পেলেন এটা বানানো কতটা সিম্পল। আশা করি এই সিম্পল রেসিপি আপনাদের নিশ্চয়ই ভালো লাগবে৷ আর ভালো লাগল প্রতিবারের মতো আমাকে কিন্তু কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না।

গরম গরম ভাতের সাথে রকম দই ইলিশ পেলে। আমার তো আর কিছু লাগবে না। ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।

Leave a comment