বেগুন বাসন্তী রেসিপি । Begun Basanti Recipe

নমস্কার বন্ধুরা শীতকাল মানেই বাজারে নানান রকমের সবজির সমাহার। তার মধ্যে বেগুন কিন্তু এই সময়টাতেই সবথেকে ভালো পাওয়া যায়। সারা বছর বেগুন পাওয়া গেলেও শীতকালে বেগুনের টেস্টটা খুবই ভালো।

তাই আজকে নিয়ে এসেছি বেগুনে সেরা রেসিপি গুলোর মধ্যে বেগুন বাসন্তী রেসিপি নিরামিষ দিনেই বেগুন বাসন্তী তৈরি করে দেখতে পারেন গরম গরম ভাতের সঙ্গে খেতে দারুণ লাগে। তাহলে চলুন শুরু করি সবার প্রথমে নিয়ে নিয়েছি বেগুন।

মাঝারি সাইজের বেগুন চার টুকরো করে কেটে নিয়েই গোটা শুদ্ধ কিন্তু কেটে নিয়েছি। তারপর ভাল করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিয়েছি বেগুন আমি চার টুকরো করে কেটে নিয়েছি বেগুনের মধ্যে দিয়ে দেবো এক টি স্পুন হলুদ গুঁড়ো দিয়ে দেবো এক টিস্পুন হুঁ চিনি দিয়ে দেবো এক টেবিলস্পুন লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে দেবো হাফ টিস্পুন এবারে নুন চিনি হলুদ আর লঙ্কার গুঁড়ো ভালো করে বেগুনের গায়ে মাখিয়ে নেব ভাল করে মাখিয়ে নিয়ে রেখে দেবে 5 মিনিট তারপর চলে যাব পরের স্টেপে এ বারে বেশ কিছুটা পরিমাণে সরষের তেল গরম করে নিয়ে প্রেমটাকে মিডিয়াম গুলোতে করে।

এর মধ্যে বেগুন গুলো কে ভেজে নেব।করে বেগুন আমি একসঙ্গে ভেজে নিচ্ছি। উল্টেপাল্টে বেগুনগুলোকে আমাদের ভালো করে ভেজে নিতে হবে।

বেগুনগুলো ভাজা হয়ে গেছে। এবার এগুলোকে তেল থেকে ছেঁকে তুলে নেবো। আর একই ভাবে সব কটা বেগুন ভেজে নেব।

এবারে মিষ্টি জলের মধ্যে নিয়ে নেবো সাদা সর্ষে দুই টেবিল স্পুন কালো সর্ষে নিয়ে নেব দুই টেবিল স্পুন দিয়ে দিচ্ছি পোস্ত দুই টেবল স্পুন এর সঙ্গে দিয়ে দেবো আর দিয়ে দেবো গোটা দশেক কাঁচা লঙ্কা।

তবে ঝালটা কিন্তু নিজেদের সাধ্য অনুসারে অ্যাড করতে হবে। এবার জল দিয়েই পোস্ত সর্ষে কাঁচালঙ্কা তাঁকে একদম মিহি করে পেস্ট করে নেব।

এদিকে এই বেগুনভাজা হয়ে যাওয়ার পর কড়াইতে ফোটে বস্তুর মতো তেলটা রেখে দিয়েছি৷ তার মধ্যে ফোড়ন দিয়ে দেবো হাফ টিস্পুন কালো জিরে আর গোটা চারেক কাঁচা লঙ্কা ফোড়ন টাকে ফ্রাই করব। 15 থেকে কুড়ি সেকেন্ড।

তারপর এর মধ্যে তৈরি করে রাখা সর্ষে পোস্ত কাঁচালঙ্কা পেস্ট দিয়ে দেবো।

কাঁচা লঙ্কা সর্ষে পোস্ত বাটা দিয়ে সামান্য মিক্স করে নেবো। এর সঙ্গে এর মধ্যে অ্যাড করে দেব একটি স্পুন জিরের গুঁড়ো দিয়ে দেবো। হাফ টিস্পুন, হলুদ গুঁড়ো নুন দিয়ে দেবো। এক টিস্পুন আর দিয়ে দেবো, দু টি স্পুন চিনি। তবে নুন চিনি আর ঝালের পরিমানটা কিন্তু নিজেদের সাধ্য অনুসারে অ্যাড করতে হবে।

তার পরে সব কিছুকে নাড়তে নাড়তে 30 সেকেন্ড মতো রান্না করবো এই সময়। কিন্তু ফ্রেমটা আলোতেই রয়েছে 30 সেকেন্ড নাড়াচাড়া করার পর এর মধ্যে দিয়ে দেবো নারকেল বাটা।

মিক্সির জারে হাফ কাপ নারকেল কোরা নিয়ে উষ্ণ গরম জল দিয়ে ভাল করে মিহি করে পেস্ট করে নিয়েছি। সেটা দিয়ে দিলাম এই নারকেল বাটা অ্যাড করার পরে আরও 30 সেকেন্ড মতো কষিয়ে নেব।

তিরিশের নাড়াচাড়া করে নেওয়ার পর এর মধ্যে দিয়ে দেবো জল মিক্সির বাটিতে ধুয়ে আমি এর মধ্যে জল দিয়ে দিলাম প্রায় এক কাপ মতো জল অ্যাড করে দেব।

গ্রেভিটা যে ফুটতে শুরু করবে তখন এর মধ্যে ভেজে রাখা বেগুনগুলো কে সাজিয়ে দেব । বেগুনভাজা যে তেলটা থালায় জমা হবে সেটা আমি এর মধ্যে দিয়ে দিলাম।

বেগুনগুলো অ্যাড করার পর সামান্য নাড়াচাড়া করে দেব যাতে বেগুনের গায়ে গ্রেভিটা ভাল মতো লেগে যায়। আর এর মধ্যে দিয়ে দেবো গোটা চারেক কাঁচা লঙ্কা আমি ফোনে কাঁচা লঙ্কা দিয়েছিলাম। এখন আরও কাঁচালঙ্কা দিচ্ছি। তারপরে লো ফ্লেমে ঢাকা দিয়ে রান্না করব 5 মিনিট 5 মিনিট পর ফিরে আসছি।

5 মিনিট হয়ে গেলে ঢাকা খুলে আমি করায় তাকে ধরে একটি সামান্য নাড়াচাড়া করে নিচ্ছি ভাবে। কারণ যদি আমি খুন্তি দিয়ে বাজরা দিয়ে নাড়তে চাই এটা কিন্তু একটু ঘেঁটে যেতে পারে। কারণ বেগুনটা খুবই নরম হয়।

আর প্রেমটাকে হাতে করে 1 মিনিট ফুটিয়ে নেব তাহলে কিন্তু বেগুন বাসন্তী একদম রেডি হয়ে যাবে। গরম গরম ভাতের সঙ্গে সার্ভ করার জন্য এই বেগুন বাসন্তী বেগুনের অন্যতম সেরা রেসিপি গুলোর মধ্যে যারা ট্রাই করেছেন তাঁরা তো জানেনই যাঁরা কোনওদিন বাড়িতে তৈরি করেননি তাঁরা একবার ট্রাই করে দেখুন আশা করি সবার খুব ভাল লাগবে।

রেসিপি ভালো লাগলে শেয়ার করার অনুরোধ রইলো। আর এমনই নিত্য নতুন রান্নার রেসিপি আপডেট প্রতিদিন পেতে ব্লগে আপডেট থাকো । ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আমি আবার হাজির হব। নতুন নতুন রেসিপির সঙ্গে নমস্কার।

Leave a comment